norway

Norway।।স্বপ্নের দেশ নরওয়ে কল্পনাকে হার মানাবে

স্বপ্নের দেশ নরওয়ে একবার ভেবে দেখুনতো যে দেশে ছয় মাস সূর্য ওঠে এবং ছয় মাস সূর্য থাকেনা ,তাহলে কেমন হতে পারে ।কিংবা মধ্যরাতে হঠাৎ আকাশে সূর্য ভেসে ওঠে ,শুধু তা-ই নয় নরওয়ে পৃথিবীর এমন একটি দেশ যে দেশের তথ্যগুলো শুনলে আশ্চর্য হয়ে যাবেন ।যে এমন দেশ পৃথিবীতে আছে এটা আগে কখনো জানেনিই।

নরওয়ে ইউরোপ মহাদেশের একটি রাজতান্ত্রিক দেশ এটাকে সরকারিভাবে নরওয়ে রাজ্য বলা হয়। বিশ্বজুড়ে স্ক্যান্ডিনইভিআর দৃষ্টি মূলত মধ্যরাতের সূর্যের দেশ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপূর্ব নিদর্শন রয়েছে যার প্রত্যেকটি অঞ্চল দেখলে মনে হয় যেন রূপকথার কোন এক রাজ্য, অর্থনৈতিক দিক দিয়ে সমৃদ্ধশালি একটি দেশ। বিশ্বব্যাংকের রিপোর্ট অনুযায়ী মাথাপিছু আয়ের দিক থেকে চতুর্থ তম দেশ নরওয়ে। আমরা আজকে জানতে চাইছি শান্তিপ্রিয় দেশ সম্পর্কে অজানা এবং আশ্চর্য কিছু রোমাঞ্চকর তথ্য যেটা আমাদের চিন্তাকে পরিবর্তন করতে পারে

শান্তিপূর্ণ দেশ নরওয়ে বৃহত্তম শহর এবং রাজধানীর নাম হচ্ছে অসলো। নরওয়ে এর বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নাম হচ্ছে এলেনা সলবার্গ।নরওয়ে সুইডেন ইউনিয়ন থেকে স্বাধীনতা লাভ 1905 সালের 7 জুন। এদেশের মোট আয়তন 3 লক্ষ 85 হাজার 252 বর্গকিলোমিটার। আয়তনের দিক থেকে বিশ্বের 67 তম দেশ ।এর মোট জনসংখ্যা 2019 সালের একটি হিসাব অনুযায়ী 53 লাখ 28 হাজার ।প্রতি বর্গ কিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব 16.53 জন এ দেশের মোট জনসংখ্যার 2.4 শতাংশ মুসলিম এবং 82.14% খ্রিস্টান এবং বাকিরা বৌদ্ধ হিন্দু ধর্ম এবং অন্যান্য নাম না জানা ধর্মাবলম্বী।

পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধের দেশ নরওয়ে আশ্চর্য ঘটনার মধ্যে সর্ব প্রথমে আসে। বছরের একটি দিনে এখানে 24 ঘন্টায় সূর্যের আলো থাকে ।এবং গ্রীষ্মকালে নরওয়ের একটি অঞ্চলে দুই থেকে চার মাস একটানা সূর্যের আলো বিদ্যমান থাকে এবং রাতের আকাশে অন্ধকার, এর পরিবর্তে গোধূলির আলো ফোটে যেটা দেখতে অত্যন্ত মনোমুগ্ধকর। প্রতিবছর একুশে জুন মধ্যরাতে হঠাৎ এখানে সূর্য উদয় হয় এই ঘটনাটিকে নগরবাসী হোয়াইট লাইট হিসেবে উদযাপন করে ।

নরওয়ের স্বাভাবিক নিয়মে সূর্য উঠলেও তা অস্ত না গিয়ে দিগন্ত রেখার উপরে অবস্থান করে এবং রাতের বেলা আকাশে মৃদু মৃদু আলো দেখা যায় আশ্চর্য অলৌকিক সৌরজগতের সৃষ্টি করে।এই দৃশ্য দেখার জন্য এখানে হাজার হাজার পর্যটক এর ভিড় নামে। তাছাড়া এমন আরও একটা ঘটনা নরওয়েতে দেখা যায় রাতের আকাশে লাল নীল হলুদ সবুজ বিভিন্ন রঙের আলো দেখা যায় যা অরোরা বা নর্দান লাইট হিসেবে পরিচিত।

বছরের চার মাস এখানে বরফে ঢাকা থাকে। নরওয়ের লার হেল টানেল পৃথিবীর দীর্ঘতম টানেল যার দৈর্ঘ্য 15 কিলোমিটার ।জাতিসংঘের প্রথম মহাসচিব নরওয়ে থেকে নিযুক্ত হয়। নরওয়েতে একটি জায়গা আছে যার নাম লিয়েনগ রেবিয়ান এখানে মৃত্যুকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ।কেননা এখানে প্রচুর প্রনাফ্যাট আছে যার কারণে মৃতদেহ পচে না। কি শুনতে আশ্চর্য লাগছে না। মুমূর্ষু রোগীকে এই শহরের বাইরে নিয়ে যায় মৃত্যুবরণ করানোর জন্য এবং শহরের বাইরে তাকে সমাধিস্থ করা হয়।

নরওয়েতে একটি পেঙ্গুইন রয়েছে যার নাম নীলস অলপ, যে মূলত এলিনা পার্কে অবস্থিত চিড়িয়াখানা তে বসবাস করে ,যাকে রাজার প্রতিরক্ষা বাহিনীর কর্নেল উপাধিতে ভূষিত করা হয় ।আপনি ভাবতে পারছেন একটি পেঙ্গুইন যে সেনাবাহিনীকে পরিচালনা করে ।

1973 সালে নরওয়ের রাজা তেল সংকটের সময় নিজের গাড়ি ব্যবহার না করে পরিবহনের মাধ্যমে যাতায়াত করে যাতে তেল সংকট একটু হলেও কমানো যায়। পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী দেশের মধ্যে নরওয়ে অন্যতম।ঝুঁকিপূর্ণ শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে 2017 সালে প্রথম স্থান অধিকার করে।2018 সালে দ্বিতীয় স্থান এবং 2019 সালে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে।

নরওয়ে যে – 5 ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় বাচ্চাদের বাবা মা তার বাচ্চাকে বাড়ির বাহিরে ঘুম পাড়িয়ে রাখে। তাদের বিশ্বাস ঠান্ডা বাতাস শরীরে লাগলে শরীরের জন্য অনেক উপকারী। যেখানে আমরা কি করি 15° তাপমাত্রায় কেউ বাচ্চাদের বাড়ির বাহির হতে দেয় না ।আপনারা জেনে অবাক হবেন যে নরওয়েতে মাদকসহ ধরা পড়লে যে শাস্তি হয় তার চেয়ে বেশি শাস্তি হয় দ্রুত গতিতে গাড়ি চালানো। 100 কিলোমিটার পার ঘন্টা বা তার আসে পাশের গতিতে গাড়ি চালালে আপনাকে 18 দিনের কারাবাস ভোগ করতে হবে ।

নরওয়ে পৃথিবীর সবচেয়ে কফি পানকারী দেশ প্রতিবছর গড়ে একজন মানুষ এখানে 10 কেজি কফি পান করে ।সুপার মার্কেট গুলোতে আপেলের তৈরি মদ বিক্রি করে। অ্যালকোহলযুক্ত মদ এখানে খুব কমই রয়েছে ।1971 সালে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড নিষিদ্ধ করা হয় এবং সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে 21 বৎসর কারাদণ্ড নির্ধারণ করা হয় এবং কারাবাস অবস্থাতে একজন অপরাধী ফ্রি ওয়াইফাই কানেকশন এবং একটি কম্পিউটার পেয়ে থাকেন ,তার বিনোদনের জন্য ।

আপনারা জেনে অবাক হবেন যে নরওয়ের প্রধান খাদ্য হচ্ছে পিজ্জা, প্রতিবছর গড়ে প্রায় 24 মিলিয়ন ভক্ষণ করে থাকেন নরওয়ের মানুষ ।প্রত্যেক নরওয়ের বাসীকে টেলিভিশনের জন্য 318 মার্কিন ডলার লাইসেন্স ফি প্রদান করতে হয়। নরওয়েতে গ্রীষ্মকালে 6 মাস যেমন সূর্যের আলো থাকে, শীতকালে 6 মাস সূর্যের আলো দেখা যায় না। এই সময় দেখা মেলে ভড়ম্বলি অলিসবা বিভিন্ন রঙের রেশমি রং বেরংয়ের খেলা সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবর মাসে দেখা যায়।

নরওয়েযে রয়েছে বিভিন্ন ছোট-বড় নদ আর এই নদের ভিতর পাওয়া যায় সবচেয়ে বেশি ইউরোপিয়ান মহাদেশের সুস্বাদু স্যামন মাছ। বিশ্বের 100 টি দেশে এই স্যামন মাছ রপ্তানি করে থাকে। নরওয়েতে রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম সুরঙ্গ পথ যেটা 24.5 কিলোমিটার দীর্ঘ বর্তমান বিশ্বে। নরওয়ের পরিচয় শান্তির দেশ হিসেবে প্রতিবছর আলফ্রেড নোবেল এর মৃত্যুবার্ষিকী অধীন বিশ্ব বিখ্যাত সিটি হল থেকে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়।

নরওয়ের জনগণ অর্থাৎ নরওয়েজিয়ান মানুষজন সব চাইতে সুখী জনগণ এর পেছনের কারণ হচ্ছে তাদের ব্যক্তি-স্বাধীনতা দীর্ঘ আয়ু শারীরিক সক্ষমতা এবং সামাজিক সহযোগিতা। এর মুদ্রার নাম হচ্ছে নরওয়েজিয়ান ক্রন্টি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *